ব্রেকিং

x

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাত বছর পর শিকলমুক্ত হলো বাদল

সোমবার, ২০ মে ২০১৯ | ৯:৪৮ পূর্বাহ্ণ | 904 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাত বছর পর শিকলমুক্ত হলো বাদল

সাত বছরের শিকলে বাঁধা জীবন থেকে মুক্তি মিলেছে শিশু বাদলের। ৯ বছর বয়সী মানসিক প্রতিবন্ধী শিশু বাদলকে শনিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের মৌলভীপাড়া এলাকার একটি বাসা থেকে মুক্ত করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা পুলিশ।

শিশুটির তিন মাস বয়সে বাবা ও দুই বছর বয়সে মা তাকে ছেড়ে চলে যায়। দাদির কাছেই অনেকটা অমানবিকভাবে বেড়ে ওঠছিল বাদল।


খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১০ বছর আগে জেলার সরাইল উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের শাহবাজপুর গ্রামের রিপন মিয়া ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদরের কালিসীমা গ্রামের মোমেনা বেগমের বিয়ে হয়। বিয়ের এক বছর পর রিপন-মোমেনা দম্পতির ঘরে জন্ম নেয় শিশু বাদল। তবে মাত্র তিন মাস বয়সেই বাদলকে ফেলে চলে যান বাবা রিপন মিয়া। পরে মা মোমেনা ও দাদি শাহানা বেগম বাদলকে লালন-পালন করতে থাকেন।

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাদলের মানসিক প্রতিবন্ধকতার বিষয়টি ধরা পড়ে। বাদল স্বাভাবিকভাবে কথা বলতে পারত না এবং তার মধ্যে বেশি চঞ্চলতা ছিল। এ অবস্থায় দুই বছর বয়সে বাদলকে দাদির কাছে রেখে মা মোমেনাও চলে যান। বাবা-মা ছাড়া সন্তান নিয়ে বিপাকে পড়েন দাদি শাহানা। অন্যের বাড়িতে কাজ করে নাতিকে লালন পালন করতে থাকেন শাহানা। কিন্তু অর্থের অভাবে ঠিকমতো বাদলের চিকিৎসা করাতে পারেননি। প্রতিবেশীদের কাছে থেকে সাহায্য নিয়ে কিছুদিন চিকিৎসা করিয়েছেন। কিন্তু তাতে কোনো লাভ হয়নি। বাদলের চঞ্চলতার কারণে তাকে দিনের বেলা শিকলে বেঁধে রাখা হত।

দাদি শাহানা বেগম সাংবাদিকদের বলেন, বাদলকে নিয়ে কারো বাড়িতে কাজ করতে পারি না। আবার বাড়িতে রেখে গেলেও এদিক-ওদিক ছুটাছুটি করে। এ কারণে তাকে রশি দিয়ে বেঁধে রাখা হত। কিন্তু বয়স বাড়ার পর রশি ছিঁড়ে ফেলতো সে। তাই নিরুপায় হয়ে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখি।

এদিকে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছ থেকে শিশু বাদলকে শিকলে বেঁধে রাখার খবর পেয়ে তাকে মুক্ত করে দিয়েছে সদর মডেল থানা পুলিশ। পাশাপাশি বাদলের চিকিৎসা এবং তার দাদিকে পুনর্বাসনের ব্যবস্থার বিষয়টিও গুরুত্ব দিয়ে দেখছে পুলিশ।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. রেজাউল কবির বলেন, বাদল খুবই চঞ্চল প্রকৃতির। তার বিষয়টি নিয়ে আমরা বিভিন্ন জায়গায় কথা বলেছি। কিন্তু তার চঞ্চলতার কারণে তাকে কোথাও রাখাটাও সমস্যা। আর বাদলের দাদির পুনর্বাসনের জন্য উদ্যোগ নিচ্ছি।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

আখাউড়ানিউজ.কমে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও চিত্র, কপিরাইট আইন অনুযায়ী পূর্বানুমতি ছাড়া কোথাও ব্যবহার করা যাবে না।

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!