ব্রেকিং

x

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শিশু হাবিবা খানম ৮ মাস ধরে অচেতন

বুধবার, ০১ মে ২০১৯ | ২:০১ অপরাহ্ণ | 562 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শিশু হাবিবা খানম ৮ মাস ধরে অচেতন

আট মাস ধরে অচেতন অবস্থায় বিছানায় শুয়ে আছে পাঁচ বছর বয়সী শিশু হাবিবা খানম। মাঝে-মধ্যে চোখ খুলে বাঁচার আকুতি জানায় সে। হাবিবা ব্রেইন টিউমার ও ক্যান্সারে আক্রান্ত। টাকা না থাকায় তাকে হাসপাতাল থেকে বাড়ি নিয়ে চলে এসেছে তার পরিবার।

হাবিবা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার খাড়েরা ইউনিয়নের দেলী গ্রামের ইকবাল খান ও মরিয়ম খানম দম্পতির সন্তান। চার ভাই-বোনের মধ্যে সবার ছোট সে। বাবা ইকবাল পেশায় দর্জি। খুবই সামান্য আয় তার।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, দেলী বাজারে হাবিবার বাবা ইকবাল খানের একটি দর্জির দোকান রয়েছে। এই দোকানের স্বল্প আয় দিয়েই সংসার চলে তাদের। বছর খানেক আগে জ্বর হয় হাবিবার। এরপর থেকে ডান হাত দিয়ে কোনো কিছু আঁকড়ে ধরতে পারতো না। সেজন্য হাবিবাকে একজন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞকে দেখিয়ে ওষুধ খাওয়াতে থাকেন। ওষুধ চলার মাঝেই ডান হাতের সঙ্গে ডান পা অকেজো হয়ে পড়ে। এরপর তাকে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকের পরামর্শে হাবিবার মাথার কম্পিউটেড টমোগ্রাফি স্ক্যান (সিটি স্ক্যান) করা হয়। সিটি স্ক্যানের রিপোর্টে হাবিবার ব্রেইনে টিউমার ধরা পড়ে। পরে ওই হাসপাতালেই ভর্তি হয়ে মাস দেড়েক চিকিৎসা করানো হয় হাবিবাকে। নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও চিকিৎসা বাবদ এক লাখ টাকা খরচ করে হাবিবার পরিবার। হাসপাতালে থাকা অবস্থাতেই অচেতন হয়ে পড়ে হাবিবা।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ব্রেইন টিউমারের পাশাপাশি হাবিবার শরীরে ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়েছে। কিন্তু ব্রেইন টিউমার অস্ত্রোপচার ও ক্যান্সারের কেমোথেরাপি দেয়ার জন্য যে পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন কিছুতেই সেটা জোগার করা সম্ভব না হাবিবার দরিদ্র পরিবারের। তাই চিকিৎসা অসম্পূর্ণ রেখেই হাবিবাকে বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে আসে তার বাবা-মা। বাড়িতে আসার ১৩ দিন পর্যন্ত হাবিবাবে নল দিয়ে খাবার খাওয়ানো হতো। এখনও অচেতন অবস্থাতেই পড়ে আছে সে। তবে মাঝে-মধ্যে চোখ খুলে তাকিয়ে থাকে।

হাবিবার মা মরিয়ম খানম জানান, যা সহায়-সম্বল ছিল তা দিয়ে যতটুকু পেরেছি চিকিৎসা করিয়েছি। এখন আর পারছি না। মেয়েটা আমার চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুর প্রহর গুনছে। সমাজের বিত্তবানদের কাছে আমি সাহায্য চাই। আমার মেয়েটাকে সবাই মিলে বাঁচান।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

আখাউড়ানিউজ.কমে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও চিত্র, কপিরাইট আইন অনুযায়ী পূর্বানুমতি ছাড়া কোথাও ব্যবহার করা যাবে না।

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!