ব্রেকিং

x

পেটের ভাত যোগাতে কোলের সন্তানকে ঘরে রেখে শ্রমিকের কাজ করছে রুবি

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০ | ১০:২৫ পূর্বাহ্ণ | 928 বার

পেটের ভাত যোগাতে কোলের সন্তানকে ঘরে রেখে শ্রমিকের কাজ করছে রুবি
ayesha_furniture

কাক ডাকা ভোরে ঘুম থেকে উঠেন রুবি বেগম (৩৫)। রান্না করে ছেলেকে খাইয়ে নিজের জন্য প্লাস্টিকের বক্সে খাবার ভরে ছুটে যান কাজে।পাকা ঘর নির্মান কাজের শ্রমিক হিসাবে পুরুষের সাথে পাল্লা দিয়ে কাজ করেন তিনি। রোববার আখাউড়া স্থলবন্দরে পাকা গৃহ নির্মান কাজ করার সময় তার সাথে কথা হয়।


রুবি বেগম জানায়, আখাউড়া পৌরসভার খড়মপুর এলাকায় গত ৩ বছর ধরে ভাড়া বাসায় থেকে নিয়মিত শ্রমিকের কাজ করে জীবন নির্বাহ করছে। তার বাড়ি সিলেট। পাকা গৃহের ছাদ ঢালাই কাজের শ্রমিক হিসাবে কাজ করেন তিনি। তার তিন বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। কাক ডাকা ভোরে উঠে ছেলে ও নিজের জন্য রান্না করেই ছুটে আসেন কাজে। সাথে করে দুপুরের খাবারও নিয়ে আসেন।


দরিদ্র পরিবারের রুবি বেগম পরিচিতজনের মাধ্যমে সিলেট থেকে আখাউড়ায় এসে আশ্রয় নেন। প্রথমে ছোট খাটো কাজ করেন। এতে সংসার চলছে না পরে বাধ্য হয়ে এই কাজে নেমেছেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে লকডাউনের জন্য বেশ কিছুদিন কাজ না থাকায় অনেক কষ্টে দিন কাটে তার, খেয়ে না খেয়ে চলতে হয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে বর্তমানেও নিয়মিত কাজ থাকেনা। তারপরও চলছে জীবন।

স্বামীর প্রসঙ্গ তুলতেই বলেন, পেটের ভাত যোগাতে তিন বছরের ছেলেকে ঘরে রেখে এসে শ্রমিকের কাজ করছি, স্বামী থাকলে কি এমনটা হতো। একেবারেই নি:সঙ্গ একজন মানুষ তিনি। আত্মীয়স্বজন কেউ পাশে নেই। একমাত্র ছেলের চিন্তা করেই কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

বিভিন্ন স্থানে কর্মক্ষেত্রে নারীর মজুরির বৈষম্য থাকলেও এখানে তিনি পুরুষের সমান মজুরী পাচ্ছেন বলেও জানান। কাজ শেষে প্রতিদিন ৩৫০ টাকা পান। তার সঙ্গে কর্মরত পুরুষ শ্রমিকরাও একই পরিমান টাকা পান।

আখাউড়ানিউজ.কমে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও চিত্র, কপিরাইট আইন অনুযায়ী পূর্বানুমতি ছাড়া কোথাও ব্যবহার করা যাবে না।

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!