ব্রেকিং

x

আখাউড়া হীরাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে অনিয়ম। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জেলহাজতে

বুধবার, ১৬ মে ২০১৮ | ৫:৪৫ অপরাহ্ণ | 1964 বার

আখাউড়া হীরাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে অনিয়ম। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জেলহাজতে
আদালতে আটককৃত শিক্ষক রফিকুল ইসলাম ও পাশে প্রধান শিক্ষকদের নামের তালিকা

আখাউড়া হীরাপুর শহীদ নোয়াব মেমোরিয়্যাল উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনায় নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিধি মোতাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিয়োগ হয়নি। গতকাল ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আদালতে আটকের পর অনিয়মের সব গোপন তথ্য ফাস হয়েগেছে। এলাকা জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে ক্ষোভের।


সরেজমিন খোজ নেয়ার সময় জানাগেছে, ২০১০ সালের ডিসেম্বর মাসে বিদ্যালয়ের নিয়মিত প্রধান শিক্ষক মো: মতিউর রহমান অবসর গ্রহন করলে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের বিধি মোতাবেক সহকারী প্রধান শিক্ষক মো: নুর-ই-আলমকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব দেয়া হয় কিন্তু দুই মাস যেতে না যেতেই তাকে সরিয়ে স্কুল ম্যানেজিং কমিটি বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো: এরফানুল ইসলামকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব দেয়। এরফানুল ইমলাম টানা আড়াই বছরের অধিক সময় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব পালন করে। তার অধীনে একটি ম্যানেজিং কমিটি গঠন হয়। পরে নতুন প্রধান শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হলে এরফানুল ইসলামকে সরিয়ে আবারও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক করা হয় বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এস, এম রফিকুল ইসলামকে। নিয়োগ পরীক্ষায় এরফানুল ইসলাম প্রধান শিক্ষক পদে উত্তীর্ণ হলেও রাজনৈতিক কারণে তাকে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব না দিয়ে রফিকুল ইসলামকে দিয়ে চলতে থাকে বিদ্যালয়। এরফানুল ইসলাম পরে বাদী হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালতে একটি মামলা দাযের করে যা আদালতে বিচারাধীন। এই রফিকুল ইসলামের অধিনে আবারও একটি ম্যানেজিং কমিটি হয়। সম্প্রতি দুইজন অফিস সহকারী নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারীকৃত পরিপত্র অনুযায়ী রফিকুল ইসলামের অধিনে নিয়োগ প্রক্রিয়া বৈধ হবেনা তাই পুনরায় গত ২০ এপ্রিল সহকারী প্রধান শিক্ষক নুর-ই-আলমকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব দেয়া হয়। নিয়োগ প্রক্রিয়া চলাকালীন এরফানুল ইসলামের দায়ের করা একটি মামলায় গতকাল মঙ্গলবার আদালত আটক করে জেলহাজতে পাঠিয়েছে শিক্ষক রফিকুল ইসলামকে।


সহকারী শিক্ষক এরফানুল ইসলাম জানায়, প্রধান শিক্ষকের শূন্য পদে নিয়োগ পরীক্ষায় প্রথম স্থান লাভ করলেও ম্যানেজিং কমিটির নানাবিধ যড়যন্ত্রের তাকে নিয়োগ দেয়া হয়নি। বরং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারীকৃত পরিপত্রকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সম্পূর্ণ অবৈধভাবে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন শুরু করে সহকারী শিক্ষক রফিকুল ইসলাম। আটককৃত শিক্ষকের বিরুদ্ধে ৯০ লাখ ৩৬ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগও তুলেন তিনি।

বর্তমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নুর-ই-আলম জানায়, তিনি বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক হওয়ার পরও প্রধান শিক্ষকের শূন্যপদে গত সাড়ে ৭ বছরে বেআইনী ভাবে তাকে বাদ দিয়ে অপেক্ষাকৃত জুনিয়র সহকারী দুই শিক্ষককে পর্যায়ক্রমে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব দেয়া হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আইন অমান্য করে কেন তার বদলে সহকারী শিক্ষকদের প্রধান শিক্ষকের আসনে বসানো হল তা তিনি এখনো স্পষ্ট বলতে পারছেন না। তিনি আরো বলেছেন, তাকে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেয়া হলেও হিসাব নিকাষ কিংবা কোন কাগজপত্র বুঝায় দেয়া হয়নি।

বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও আখাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগর যুগ্ম আহবায়ক আবুল কাশেম ভুইয়া জানায়, প্রধান শিক্ষকের শূন্য পদে প্রার্থী হওয়ায় সহকারী প্রধান শিক্ষককে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেয়া যায়নি, সিনিয়র হিসাবে তখন রফিকুল ইসলামকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল।  প্রধান শিক্ষকের শূন্যপদ পুরণ না হওয়ায় সহকারী প্রধান শিক্ষককে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তিনি আরো জানান, এরফানুল ইসলামকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেয়াকালে তিনি ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ছিলেন না। তার আমলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিধি লংঘন হয়নি বলেও তিনি জানিয়েছেন।

আখাউড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: শওকত আকবর খান জানান, প্রধান শিক্ষকের পদ শূন্য হলে বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক দায়িত্ব পালন করবে। সহকারী প্রধান শিক্ষক না থাকলে সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে সবার সিনিয়র একজন শিক্ষককে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেয়ার বিধান রয়েছে। হীরাপুর শহীদ নোয়াব মেমোরিয়্যাল উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যে একটি মামলা চলমান থাকায় তিনি এরচেয়ে বেশী কিছু বলতে পারবেন না বলেও জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শামছুজ্জান জানিয়েছেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিধি মোতাবেক প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেয়ার জন্য ম্যানেজিং কমিটিকে দুইটি চিঠি দিয়েছেন। সে অনুযায়ী সহকারী প্রধান শিক্ষককে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আখাউড়ানিউজ.কমে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও চিত্র, কপিরাইট আইন অনুযায়ী পূর্বানুমতি ছাড়া কোথাও ব্যবহার করা যাবে না।

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!