ব্রেকিং

x

আখাউড়া শহরবাসীর দাবী পুরন। অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু

শনিবার, ৩১ মার্চ ২০১৮ | ৯:৪৪ অপরাহ্ণ | 2903 বার

আখাউড়া শহরবাসীর দাবী পুরন। অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু

আখাউড়া পৌর শহরবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী ছিল নতুন একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের। বালিকা বিদ্যালয় থাকলেও বালকদের জন্য মাধ্যমিক পর্যায়ের বিদ্যালয় না থাকায় পৌর শহরের প্রাণ কেন্দ্রে একটি বিদ্যালয় স্থাপনের দাবী ছিল শহরবাসীর। বিশেষ করে মসজিদপাড়া, রাধানগর ও নারায়নপুরবাসী দুইযুগ ধরে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের দাবী জানিয়ে আসছিল। তাদের দাবীর মুখে প্রায় একযুগ আগে শহীদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজের সাথে কলেজিয়েট মাধ্যমিক বিদ্যালয় চালু করেও পরে রহস্যজনক কারনে তা বন্ধ করে দেয়া হয়। এ্যাডভোকেট আনিসুল হক এমপি দেশের আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী হওয়ার পর এই দাবী আবারও উপস্থাপন হয়। মন্ত্রীমহোদয়ে নির্দেশে আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল ২০১৭ সালে মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের কাজ শুরু করেন। আখাউড়া পৌরসভার প্রাণ কেন্দ্র রাধানগর কলেজ পাড়ায় ‘অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয়’নামে বিদ্যালয়টি যাত্রা শুরু করে।

sa3

অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল আউয়াল জানিয়েছেন, এই বছর জানুয়ারী মাসেই বিদ্যালয়টি চালু হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে ৯ জন শিক্ষক ও শিক্ষিকার পরিচালনায় ১৬৬ জন ছাত্র-ছাত্রী দিয়ে বিদ্যালয়টির যাত্রা শুরু হয়। শিশু শ্রেনীতে ৬৩ জন, প্রথম শ্রেণীতে ৬৬ জন ও ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে ৩৭ ছাত্র-ছাত্রী দিয়ে বিদ্যালয়টি শুরু হলেও পর্যায়ক্রমে ক্লাস বর্ধিত করে বর্তমান সময়ের উপযোগী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে বিদ্যালয়টিকে গড়ে তুলা হবে বলেও তিনি জানান।

তিনি আরো বলেছেন, ক্রীড়া শিক্ষকসহ যোগ্যতা সম্পন্ন ৫জন শিক্ষিকা ও ৪জন শিক্ষক দ্বারা যত্নসহকারে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বিদ্যালয়য়ের শিক্ষা কার্যক্রম চলছে। ইতিমধ্যে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও স্বাধীনতা দিবস থেকে শুরু করে জাতীয় দিবসগুলোতে ‘অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয় অংশগ্রহন করছে।

sa

অতি সম্প্রতি বিদ্যালয় চালু অবস্থায় কথা হয় বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো: মহিউদ্দিন (মাহিন) ও ফারহানা আক্তার ইতির সাথে। ওরা বলেছে, তাদের প্রধান শিক্ষক লন্ডন ক্যাম্রব্রীজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশিক্ষন প্রাপ্ত যোগ্যতা সম্পন্ন একজন মানুষ গড়ার কারিগর। প্রতিষ্ঠাতা আখাউড়া পৌরসভার মেয়র মহোদয়ের আন্তরিক প্রচেষ্টা আর প্রধান শিক্ষকের অভিজ্ঞতায় শিক্ষার উন্নয়নে বিদ্যালয়টি প্রথম বছরই ভালো ফল বয়ে আনবে বলে তারা আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সহজ ভাষা আর স্পষ্ট লেখার প্রতি গুরুত্ব দেয়ার পাশাপাশি ত্রুটিহীন শিক্ষায় গড়ে তুলা হচ্ছে ছাত্র-ছাত্রীদের।

ওরা আরো বলেছেন. বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মেয়র তাকজিল খলিফা কাজলের আন্তরিক প্রচেষ্টায় বিদ্যালয়ে সব ধরণের শিক্ষা সামগ্রীও রয়েছে। শিক্ষার মান উন্নয়নে মেয়র মহোদয় নিয়মিত খোজ খবর রাখছেন।

আখাউড়া পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি ও নারায়নপুর গ্রামের বাসিন্দা মনির খান জানান, আমাদের আইনমন্ত্রী মহোদয় জনগণের দাবী পুরণের ক্ষেত্রে সবার সেরা। তিনি দাবী পুরণ করেই জনগণের কাছে আসতে পছন্দ করেন। শহরবাসীর প্রাণের দাবী ছিল মাধ্যমিক পর্যায়ের এই বিদ্যালয় স্থাপন করা। এই বিদ্যালয় স্থাপন হওয়ায় আমাদের সন্তানদের এখন আর অন্যত্রে গিয়ে পড়াশুনা করতে হবে না।

আখাউড়া পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ ভুইয়া বাদল জানায়, বিগত ৩০ বছর আগে থেকেই আখাউড়া পৌরশহরে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের দাবী ছিল আমাদের। তিনি আরো বলেছেন জনগনের দাবীর মুখে সাবেক এমপি আখাউড়া শহীদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজের সাথে যুক্ত করে লোক দেখানো কলেজিয়েট বিদ্যালয় চালু করেছিলেন কিন্তু বছর না ঘুরতেই বিদ্যালয়টি বন্ধ হয়ে যায়। দেশের সংবিধান প্রনেতা সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সিরাজুল হকের সুযোগ্য সন্তান এ্যাডভোকেট আনিসুল হক আইনমন্ত্রী হওয়ার পর আমরা আবার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দাবী নিয়ে আইনমন্ত্রী মহোদয়ের নিকট গেলে তিনি বিদ্যালয় স্থাপনের নির্দেশ দেন। মন্ত্রীমহোদয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী আখাউড়া পৌরসভার সুযোগ্য মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল ‘অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন।

তিনি আরো বলেছেন, বিদ্যালয়টি স্থাপন হওয়ায় এলাকার শিক্ষার্থীদের শিক্ষার অনেক বড় একটি উন্নয়ন ঘটেছে। বিশেষ করে মসজিদপাড়া, রাধানগর ও নারায়নপুরের শত শত ছাত্রকে বিদ্যালয়ে যেতে দীর্ঘ সময় পারি দিতে হবে না। বিদ্যালয়টি চালু হওয়ায় অভিভাবক মহলেও স্বস্তি এসেছে। শহরবাসীর এই দাবী পুরন করায়  তিনি আইনমন্ত্রী মহোদয় ও পৌরসভার মেয়রকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ও রাধানগর কলেজপাড়ার বাসিন্দা ড. মুখলেছুর রহমান বলেছেন, অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয় স্থাপনের মাধ্যমে এখানকার মানুষের দীর্ঘদিনের একটি দাবী পুরণ হয়েছে। এতে এলাকার ছাত্র-ছাত্রীদের অনেক উপকার হয়েছে। এখন আর দূরবর্তী স্থানে যেতে হবে না ছাত্র-ছাত্রীদের। তিনি বিদ্যালয়টি স্থাপন করায় আইনমন্ত্রী মহোদয় ও মেয়রকে ধন্যবাদ জানান।

এছাড়াও নতুন এই মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের ব্যাপারে রাধানগর, মসজিদপাড়া ও নারায়নপুরের শতাধিক লোকের সাথে কথা হয়। পৌর শহরে মাধ্যমিক পর্যায়ের এই বিদ্যালয়টি স্থাপন হওয়ায় সবাই কসবা-আখাউড়ার সংসদ সদস্য আইনমন্ত্রী ও পৌরসভার মেয়রকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেছেন, বিদ্যালয়টি স্থাপন হওয়ায় আমাদের দীর্ঘদিনের দাবী পুরন হয়েছে।

অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল বলেছেন, শহরের প্রাণ কেন্দ্রে নাছরীন নবী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় নামে একটি মাধ্যমিক পর্যায়ের বিদ্যালয় থাকলেও বালকদের বিদ্যালয় ছিল না। পৌরসভার মসজিদপাড়া, রাধানগর ও নারায়নপুর বাসীর দাবী ছিল একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের। আইনমন্ত্রী মহোদয় তাদের এই দীর্ঘদিনের দাবী পুরন করেছেন। তিনি আরো বলেছেন, বিদ্যালয় ভবনের এক তলার কাজ শেষ হওয়ার পর এই বছর জানুয়ারী মাসেই অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালটি চালু করা হয়েছে। দ্বিতীয় তলার কাজ চলছে। আগামী বছর বিদ্যালয়ের শিক্ষা ব্যবস্থা আরো বর্ধিত করা হবে বলেও তিনি জানান। মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল আরো জানায়, আখাউড়া পৌর শহরের প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত এই বিদ্যালয়কে পর্যাক্রমে যুগ উপযোগী শিক্ষা ব্যবস্থায় করে তুলা হবে।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

আখাউড়ানিউজ.কমে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও চিত্র, কপিরাইট আইন অনুযায়ী পূর্বানুমতি ছাড়া কোথাও ব্যবহার করা যাবে না।

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!