ব্রেকিং

x

আখাউড়ায় নারী দিবসে কর্মজীবী নারীদের কথা

বৃহস্পতিবার, ০৮ মার্চ ২০১৮ | ৮:৩৬ অপরাহ্ণ | 1540 বার

আখাউড়ায় নারী দিবসে কর্মজীবী নারীদের কথা

আজ ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। প্রতি বছরই দিবসটি নারীরা উদযাপন করে। এই নারী দিবস উপলক্ষ্যে আখাউড়া উপজেলায়ও নারীরা বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করেছে আজ। আসলে নারীর চলার পথে নানা প্রতিবন্ধকতা ছিল শুরু থেকেই, বিভিন্ন বাধা বিপত্তি পেরিয়েই চলছে নারী সমাজ। সময়ের সাথে সাথে বর্তমানে নারীর অনেক প্রতিবন্ধকতা দূর হয়েছে। নারীরা এখন সব ক্ষেত্রে অবদান রাখছে মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে। পুরুষের সাথে পাল্লা দিয়ে জাতীয় অর্থনীতি থেকে শুরু করে কর্মক্ষেত্রে ব্যাপক সফলতা অর্জন করছে নারীরা। রাষ্ট্র পরিচালনা, আইন প্রণয়ন, শান্তিশৃংখলা রক্ষাসহ বিভিন্ন ঝুকিপুর্ণ কাজেও নারীরা এখন দক্ষতা দেখিয়ে সফলতা অর্জন করছে। কোন কোন ক্ষেত্রে নারীরা পুরুষের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে। অফুরান প্রানশক্তি দিয়ে নারীরা যেমন সামলাচ্ছেন নিজের স্বামী-সন্তান পরিবার আর কর্মক্ষেত্রেও শতভাগ দায়িত্ব পালন করে সফলতা অর্জন করে চলেছেন। আজ বৃহস্প্রতিবার কর্মক্ষেত্রে সফল কিছু নারীর সাথে কথা হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের হাইকোট ডিভিশনের আইনজীবী উম্মে শবনম মোস্তারী মৌসুমী নারী দিবস উপলক্ষ্যে বলেছেন, বর্তমানে নারীরা বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে সফলতার পথে এগিয়ে চলছে তবে কিছু সমস্যা রয়ে গেছে। ঘরে বাইরে এখনও কিছু নারী বিভিন্ন হয়রানির শিকার হয়ে হতাশায় ভোগছে। তারপরও হতাশা ঠেলে সামনে এগিয়ে চলার চেষ্টা করছে নারীরা। নারী নির্যাতন ও নারীর প্রতিবন্ধতা নিয়ে নানা ঘটনা চোখের সামনে প্রায় প্রতিদিনই দেখছি  একজন আইনজীবী হিসাবে। এ থেকে স্পষ্ট করেই বলা যায় পুরুষ শাষিত সমাজে নারীদের সমান অধিকার পুরোপুরি প্রতিষ্ঠিত হয়নি। পুরুষদের আধিপত্য রয়ে গেছে। নারীদের পুরুষরা এখনও কিছু কিছু ক্ষেত্রে ভিন্ন চোখে দেখে। যতদিন পর্যন্ত পুরুষরা নারীদের নারী নয়, মানুষ হিসেবে না দেখবে, ততদিন পর্যন্ত সমান অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে না। পুরুষদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে। নিজের পরিবার থেকে সহযোগীতা পেলে নারীরা আরো এগিয়ে যাবে


তিনি নিজের কথা তুলে ধরে বলেন, একটি বড় চ্যালেঞ্জ ফেস করছি আমার কর্মক্ষেত্রে।  সেদিন সকাল ৮টায় এক পিচ রুটি খেয়ে বের হয়ে সারাদিন না খেয়ে বিকাল ৫টায় কাজে সফল হলাম। মন খুব খারাপ ছিল, মনে হাল্কা রাগও ছিলো। আমি তারপরও মনোবল হারায়নি। আমি সফল হয়েও শেষ বিকালে ব্যর্থ মনে হল নিজেকে। কিন্তু আমি ভেঙ্গে পড়িনি। আমরা মেয়েরা নিজ পরিচয়ে চলবো। আমার স্বামী আমাকে অনেক সহযোগীতা দিচ্ছে আমার কাজে কিন্তু চরম ব্যস্ততা কোন স্বামীর ভালো নাও লাগতে পারে। সরকারী চাকুরীতে মাসিক বেতন থাকে কিন্তু  আইনজীবী হিসাবে আমরা কঠোর পরিশ্রম করে চ্যালেঞ্জিং পেশায় আছি। আমরাই আসল মানবাধিকার কর্মী। আমরা মানুষকে সেবা দিচ্ছি। আমাদের পেশা সম্মানিত পেশা। আমরা কারো অধিনস্থ নয়। আমরা উদার মনের মানুষ। মর্যাদা আমাদের সব কিছু। নিজের প্রানশক্তি দিয়ে স্বামী সন্তান পরিবার সামলিয়ে কাজ করে একজন আইনজীবী হয়েছি। চেয়েছিলাম ভালো একজন আইনজীবী হবো সেই লক্ষ্যে পড়াশুনা চালিয়ে গেছি। অধ্যায়নরত অবস্থায় আমার বিয়ে হয়েছে, বড় সন্তানটা খুব জ্বালাতো তারপরও আমি হাল ছাড়িনি। স্বামী,সন্তান ও পরিবার সামলিয়ে আইনজীবী হয়েছি। সবাই আমাকে আইনজীবী হিসাবেই খোজ করে। আমার নিজের পরিচয়ে নিয়ে আনন্দ উপভোগ করি। আমি উপভোগ করি আমার সন্তান আইমান ও আরিয়ানকে নিয়ে, আমার সন্তানরাই আমার অনুপ্রেরণা। নারী দিবসে সকল নারীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তিনি।

আখাউড়া উপজেলার সহকারী কমিশনার ভূমি জেসমিন সুলতানা বলেছেন, নারী এখন অনেক কর্মমুখী। সরকারী বেসরকারী সব কর্মক্ষেত্রে নারীরা পুরুষদের সাথে তাল মিলিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। নারীর ক্ষেত্রে অভিভাবক মহলে পজিটিভ মনোভাব থাকলে সব সমাজে নারীর সমান অধিকার ফিরে আসবে। কিছু জায়গায় নারীরা বৈষম্যের শিকার হলেও বর্তমানে অভিভাবক মহলের সচেতনতায় এগিয়ে যাচ্ছে নারীরা। বর্তমান সরকার কর্মক্ষেত্রে নারীদের অনেক গুরুত্ব দিচ্ছে। সব কর্মক্ষেত্রে নারী জনবল নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

তিনি নিজের কথা তুলে ধরে বলেন, আমরা ৩ বোন ১ ভাই। আমি দ্বিতীয়। সবাই মেয়ের পর ছেলে চায় কিন্তু আমার বাবা আমাদের সবাইকে সন্তান হিসাবে সমান দৃষ্টিতে গড়ে তুলেছেন। আমার সফলতার পেছনে বাবা ও মার শতভাগ সহযোগীতা রয়েছে। ছোট বয়সী একটি ছেলে ও একটি কন্যা সন্তানের মা আমি। স্বামী, সন্তান ও পরিবার সামলে নিয়ে নিজের কর্মক্ষেত্রে শতভাগ দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। সন্তানের ক্ষেত্রে মা হিসাবে যেমন ক্লান্তি আমাকে কাবু করতে পারেনা তেমনি কর্মক্ষেত্রেও পারে না।

আখাউড়া উপজেলার সাব রেজিস্ট্রার তাজনুভ জান্নাত বলেছেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রে নারীরা এখন এগিয়ে যাচ্ছে। বর্তমান সরকার নারী উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে। শিক্ষাক্ষেত্রে লিঙ্গসমতা নিশ্চিত হয়েছে।

তিনি তার নিজের কথা বলতে গিয়ে বলেছেন, স্বামী,সন্তান ও পরিবারের সবাইকে সামলে নিয়েই কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। আর এখানেই নারীরা পুরুষের চেয়ে বেশী এগিয়ে আছে। তাই নারীকে ভিন্ন চোখে দেখার সুযোগ নেই এখন। এ্যাডভোকেট আনিসুল হক এমপি মহোদয় দেশের আইন বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী হওয়ার পর আইনমন্ত্রনালয়ের সাব-রেজিস্ট্রি অফিসসহ বিভিন্ন অফিসে জনবল নিয়োগেও নারীদের অধিক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। বর্তমানে সারাদেশে হাজারো মোহড়ার নিয়োগ হবে, এখানেও নারী জনবল নিয়োগ হবে বেশী। তিনি আরো বলেছেন, কিছু কিছু ক্ষেত্রে নারী বৈষম্যের শিকার হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নারীদের সম অধিকার প্রতিষ্ঠা পেয়েছে।

28872233_167390150725252_3430185990411517952_n

এদিকে আজ দুপুরে দেখা হয় আখাউড়া নারী আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দদের সাথে। নারী দিবসের কার্যক্রমে তাদের উপস্থিতি ছিল। সবাই বলেছে বর্তমান সরকার আমলে নারীর অধিকার নিশ্চিত হয়েছে। সব জায়গায় নারীর গুরুত্ব অধিক হারে বাড়ছে। তারা বলেছেন নারীদের আর ভিন্ন চোখে দেখার সুযোগ নেই। আখাউড়া উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান পিয়ারা বেগম পিওনাসহ নারী নেতৃবৃন্দরা

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

আখাউড়ানিউজ.কমে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও চিত্র, কপিরাইট আইন অনুযায়ী পূর্বানুমতি ছাড়া কোথাও ব্যবহার করা যাবে না।

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!