ব্রেকিং

x

আখাউড়ায় ইয়াবা আগ্রাসনে ভোগছে মানুষ। অভিভাবকদের মধ্যে উদ্বিগ্ন ও উৎকন্ঠা

সোমবার, ০২ এপ্রিল ২০১৮ | ১১:৫১ অপরাহ্ণ | 1780 বার

আখাউড়ায় ইয়াবা আগ্রাসনে ভোগছে মানুষ। অভিভাবকদের মধ্যে উদ্বিগ্ন ও উৎকন্ঠা
সম্প্রতি ইয়াবাসহ আটককৃত এলু মিয়া, নুরজাহান ও সাহেদা বেগম

ইয়াবার ভয়াবহ আগ্রাসনে ভোগছে আখাউড়ার মানুষ। পৌর শহর থেকে শুরু করে গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও ছড়িয়ে পড়েছে ইয়াবা (বাবা) নামের এই মাদকদ্রব্য। ধনী দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত সব ধরণের পরিবারে এই মাদক ঢুকে পড়ছে। শুধু যুবক তরুণ নয় পেশাজীবী থেকে শুরু করে সব ধারণের লোকদের মধ্যে ইয়াবার বিস্তার ঘটেছে। ইয়াবার মরণ ছোবলে অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন ও উৎকন্ঠায় ভোগছেন সরেজমিন খোজ নেয়ার সময় এইসব তথ্য জানাগেছে।


এদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে এখন নিয়মিত ধরা পড়ছে ইয়াবার চালান কিন্তু প্রতিরোধে আশানুরুপ সুফল মিলছে না


জানাগেছে, অতি সম্প্রতি র‌্যাব ভৈরব আখাউড়া কর্ণেলবাজারে অভিযান চালিয়ে ৫ হাজার ইয়াবাসহ এলু মিয়াকে গ্রেফতার করেছে। আখাউড়া দেবগ্রামে অভিযান চালিয়ে নুরজাহান নামে এক মহিলাকে ২৬৫ পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার করে। এই মহিলা ও তার ছেলে আখাউড়া জুড়ে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত বলে খবর পাওয়া গেছে। পুলিশ সম্প্রতি শহরের মালদার পাড়ায় অভিযান চালিয়ে ইয়াবাসহ সাহেদা বেগম নামে এক মহিলাকে গ্রেফতার করে।

খোজ নিয়ে জানাগেছে, রেলপথ ও সড়ক পথে আসছে এইসব ইয়াবা (বাবা)। মসজিদ পাড়া, দেবগ্রাম, আজমপুর, চানপুর ও দুর্গাপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় এখন হাত বাড়ালেই ইয়াবা পাওয়া যায় বলে এলাকায় প্রচার রয়েছে।

আইন প্রয়োগকারী সংস্থার এক উর্দ্ধতন কর্মকর্তা বলেছেন, সর্বগ্রাসী মাদকের আগ্রাসন বন্ধে যৌথ বাহিনী গঠন করছে সরকার। এই যৌথবাহিনী সাড়াশি অভিযান চালাবে।

পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তাজুল ইসলাম বলেছেন, শহরের দুর্গাপুর ও টানপাড়া গ্রামকে মাদকমুক্ত করতে দফায় দফায় সরদার মাতব্বর ও অভিভাবকদের নিয়ে নিয়মিত বৈঠক হচ্ছে। এই সব স্থান থেকে ইতিমধ্যে মাদক ব্যবসায়ীদের তুলে দেয়া হয়েছে। মাদকসেবীদের থানায় সোর্পদ করা হচ্ছে।

এদিকে কয়েকজন পৌর কাউন্সিলর ও ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যের সাথে কথা বলে জানাগেছে, ইয়াবা এখন শুধু শহরে নয় গ্রামেও পৌছে গেছে। এই মাদকের ছোবলে অনেক সুখের সংসারও ভেঙ্গে যাচ্ছে। মাদকের টাকা যোগাড় করতে কেউ চুরি করছে, মা বাবাকে চাপ প্রযোগ করছে, পরিবারে অশান্তি সৃষ্টি করছে, কেউ কেউ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে, আবার কেউ কেউ মাদকের টাকার জন্য আত্মীয় স্বজনের জ্বালাতন করছে। এইসব ঘটনা এখন গ্রাম্য  সালিশি সভায় উঠে আসছে বলেও তারা জানায়। এতে মাদকাসক্তের পরিবারের অভিভাবকরা চরম উদ্বিগ্ন ও উৎকন্ঠায় দিন কাটাচ্ছে বলেও তারা জানান।

ইয়াবা সম্পর্কে এক চিকিৎসক জানিয়েছেন, ইয়াবা এমন এক মাদক যা মস্তিষ্ককে উদ্দীপ্ত করে। সেবন করলে তাৎক্ষনিক হৃদয়স্পন্দন, রক্তচাপ ও শরীরে তাপমাত্রা বেড়ে যায় এবং মস্তিষ্কের কিছু কোষের তাৎক্ষনিক মৃত্যু ঘটে। এ মাদক সেবনে দুর্বল ব্যক্তিদের হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যেতে পারে। সহিংস যৌনতাও ইয়াবা সেবনের একটি সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। এক বছর নিয়মিত এই মাদক সেবন করলে যৌনক্ষমতা পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায় বলে চিকিৎসক জানায়।

 

আখাউড়ানিউজ.কমে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও চিত্র, কপিরাইট আইন অনুযায়ী পূর্বানুমতি ছাড়া কোথাও ব্যবহার করা যাবে না।

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!